না’ক্লাব নির্বাচনে মেয়রকে যে ম্যাসেজ দিলেন ব্যবসায়ীরা

বিডি নিউজ আই, নিজস্ব সংবাদদাতা: ঐতিহ্যবাহী নারায়ণগঞ্জ ক্লাবের নির্বাচন সম্পন্ন হলেও ফলাফল নিয়ে আলোচনা চলছেই। নানা রকম ঢালপালা মেলছে এই আলোচনা। কারণ নির্বাচন নিয়ে আলোচনা ছিল এক নির্বাচনের পর আলোচনা আরেক। চুল-চেরা বিশ্লেষন হচ্ছে তানভীর আহমেদ টিটুর বিজয় আর মাহবুবুর রহমান মাসুমের পরাজয় নিয়ে। এত ভোটের ব্যবধানের মাধ্যমে কি ম্যাসেজ দিলেন ব্যবসায়িরা। তা নিয়েও নানা কথা চাউর হচ্ছে শহরে।
এদিকে এবারই প্রথম কোন নির্বাচনে প্রকাশ্যে ওসমান পরিবারের মুখোমুখি হয়েছিলেন মেয়র আইভী। নির্বাচনী মাঠে শামীম ওসমানকে অনুপস্থিত দেখা গেলেও সরব ছিলেন সেলিম ওসমান। তবে নেপথ্যে থেমে থাকেননি শামীম ওসমান ও তার অনুসারীরা। টিটুকে বিজয়ী করতে সর্বশক্তি নিয়োগ করা হয়েছে। যেহেতু মেয়র আইভী তার ব্যক্তিগত আকাশচুম্বি ইমেজ নিয়ে মাহবুবুর রহমান মাসুমের পক্ষে নেমেছেন সেখানে এই নির্বাচনকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে প্রচারনা চালিয়েছেন ওসমান পরিবার। কিন্তু মেয়র আইভী শুরুতে যে ভুল করেছেন তা হল প্রার্থী বাছাই। প্রার্থী বাছাই তার সঠিক ছিল না। সাধারণ ভোটারদের মতে, আব্দুর রাশেদ রাশু প্রার্থী হলে হয়তো আইভীকে বেগ পেতে হতো না। নির্বাচনী ফলাফল সহজেই তার পক্ষে যেত। সেই দিক দিয়ে তানভীর আহমেদ টিুট আইভীর প্রতিপক্ষের ফিট কেন্ডিডেট ছিল। মাহবুবুর রহমান মাসুম যতগুলো ভোট পেয়েছেন তার ৯০ ভাগ ভোট মেয়র আইভীর আর ১০ ভাগ ভোট এন্টি ওসমান। মাহবুবুর রহমান মাসুমের বাহিরে ব্যক্তিগত ইমেজ থাকলেও ক্লাব ভোটারদের কাছে কম। এর কারণ ব্যবসায়িরা ব্যবসা বোঝেন। তাই ক্লাবের উন্নয়ন আর আয় বৃদ্ধির প্রক্রিয়াধারীকেই তারা বেছে নিয়েছেন। তারা স্বপ্ন দেখছেন আগামীতে ক্লাব উন্নয়ণে কে ভুমিকা রাখবে। মাসুমের উপর তাদের সেই আস্থা ছিল না। এছাড়া ক্লাব ঘিরে একটি সুবিধাভোগী সিন্ডিকেট রয়েছে। যে সিন্ডিকেট ভাঙ্গতে পারেনি মাহবুবুর রহমান মাসুম। মূলত ব্যবসায়ীদের ক্লাব হওয়ায় পেশাজীবী মাসুমের প্রতি তাদের আগ্রহ ছিল না। তবে ভোটারদের একটি অংশ বলছেন, মাহবুবুর রহমান মাসুম জিততে না পারলেও অনেকদিন পর ক্লাবে নির্বাচনী প্রক্রিয়া চালু হলো। অন্যদিকে ব্যক্তিগত ইমেজ, তরুণ, দায়িত্ব পালনের একবছর, আগামীদিনের পরিকল্পনা এবং সর্বোপরি ওসমান পরিবারের সমর্থন টিটুকে বিজয়ের দিকে এগিয়ে নিয়েছে। এছাড়া ওসমান পরিবারের বলয়ের বাইরে টিটুর আলাদা এক ধরনের গ্রহনযোগ্যতা ছিল।
অন্যদিকে ক্লাবের আরেকটি সুত্র বলছে, মেয়র আইভীকে ক্লাবের সদস্যরা পছন্দ করেন। কিন্তু তা একজন সফল জনপ্রতিনিধি হিসেবে। নগরের উন্নয়নে তার ভুমিকা ব্যবসায়ীদের কাছে প্রশংসিত। একজন ক্লাব সদস্য এবং মেয়র হিসেবে সবাই কাছে তার গ্রহনযোগ্যতা রয়েছে। কিন্ত ক্লাবের নির্বাচনে ব্যবসায়ীরা কোন ছাড় দিতে নারাজ। আর তাই ক্লাবের ভোটারদের কাছে আইভীর আবেদন কাজে আসেনি।
উল্লেখ শনিবার ক্লাবের নির্বাচনে সভাপতি পদে ৬৮৯ ভোট পেয়ে বর্তমান সভাপতি তানভীর আহমেদ টিটু নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বি মাহবুবুর রহমান মাসুম পেয়েছেন ২৯৮ ভোট। মোট ভোট দিয়েছেন ৯৯৮ জন। বাতিল ভোট ১১।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *