ফাইনালে উঠতে দরকার ২৪৮

আর ২৪৮ রান করতে পারলেই ফাইনাল নিশ্চিত টাইগারদের। বাংলাদেশের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্কোর ৯ উইকেটে ২৪৭ রান।
ত্রিদেশীয় সিরিজের পঞ্চম ম্যাচে ডাবলিনের মালাহাইডে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় ক্যারিবীয়রা।
ব্যাট করতে নেমে দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান মিলে শাই হোপ আর সুনীল অ্যামব্রিস মিলে করেন মাত্র ৩৭ রান। উদ্বোধনী জুটিটা ভাঙেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা।
অ্যামব্রিস করেন মাত্র ২৩ রান। এরপর ডোয়াইন ব্রাভোকে মাত্র ৬ রানে ফেরান মেহেদী মিরাজ। রোস্টন চেজও এদিন হাল ধরতে পারেননি দলের। মুস্তাফিজের বলে মুশফিকের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন মাত্র ১৯ রান করে।

জনাথন কার্টার করেন ৬ রান। কার্টারকেও ফেরান কাটার মাস্টার। এরপর লম্বা জুটি গড়েন শাই হোপ আর জেসন হোল্ডার।

হোপ ধীর গতিতে রান তুললেও হোল্ডার রান তুলেন দ্রুত। শেষ পর্যন্ত হোপকে ফেরান মাশরাফি। ১০৮ বলে ৮৭ রান আসে এই উদ্বোধনীর ব্যাট থেকে।

দ্রুত রান তুলতে থাকা হোল্ডারকে দলীয় ২০৭ রানের মাথায় সাজঘরের পথ ধরার সেই মাশরাফিই। হোল্ডার খেলেন ৭৬ বলে ৬২ রানের ইনিংস।

৫০ ওভার শেষ উইন্ডিজদের দলীয় রান হয় ৯ উইকেটে ২৪৭। নিজের অভিষেক ম্যাচে ৯ ওভার বোলিং করলেও কোনও উইকেট পাননি তিনি, দিয়েছেন ৫৬ রান। মাশরাফি নেন ৩ উইকেট। মিরাজ নেন ১টি, সাকিবের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ১০ ওভারে দেন মাত্র ২৭ রান, নেন ১টি উইকেট।

মুস্তাফিজ আজ গত ম্যাচের মতো খরুচে ছিলেন না। ৯ ওভারে মাত্র ৪৩ রান দিয়ে তুলে নেন ৪ উইকেট।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *