ব্যালট পেপারে সিল, ২ পুলিশ কর্মকর্তা বরখাস্ত

বিডি নিউজ আই, কিশোরগঞ্জ: কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলায় নির্বাচনের আগের রাতে ব্যালট পেপারে সিল মারার ঘটনায় দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে দুই মাসের জন্য সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এর আগে ওই ঘটনায় তাদেরকে নির্বাচনের আগে প্রত্যাহার করা হয়েছিল।

ওই দুই পুলিশ কর্মকর্তা হলেন-কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মো. শফিকুল ইসলাম ও কটিয়াদী থানার ওসি মোহাম্মদ সামসুদ্দীন।

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলা পরিষদে নির্বাচনে আগেরদিন রাতে অবৈধভাবে সিল মারার ঘটনার সঙ্গে ওই দুই পুলিশ কর্মকর্তার সংশ্লিষ্টতা পাওয়ায় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে নির্বাচন কমিশন।

গতকাল বৃহস্পতিবার নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের জারি করা পৃথক প্রজ্ঞাপনে এই দুই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে এ ব্যবস্থা গ্রহণের করা বলা হয়েছে। নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের যুগ্মসচিব (প্রশাসন ও অর্থ) মো. কামাল উদ্দিন বিশ্বাস স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে এ প্রত্যাহারের বিষয়টি জানানো হয়েছে।

এ ছাড়া একইদিনে প্রত্যাহারের আদেশপ্রাপ্ত কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মো. শফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মহাপুলিশ পরিদর্শক বরাবর এক পত্র দেওয়া হয়েছে।

অন্যদিকে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের উপসচিব মো. সাবেদ উর রহমান স্বাক্ষরিত অন্য একটি প্রত্যাহারের আদেশপ্রাপ্ত কটিয়াদী থানার ওসি মোহাম্মদ সামসুদ্দীন এর কাছে পাঠানো হয়েছে। সেই সঙ্গে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মহাপুলিশ পরিদর্শক বরাবর এক পত্র দেওয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত গত ২৪শে মার্চ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে কটিয়াদী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের আগের রাতে ব্যালট পেপারে সিল মারার খবর পাওয়া যায় এবং পরের দিন সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হওয়ার পর রাতের ওই ঘটনা জানাজানি হতে থাকে। এ রকম পরিস্থিতিতে সকাল পৌনে ৯টার দিকে প্রথমে উপজেলার চারটি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। একই সাথে প্রত্যাহার করা হয় রাতের ভোটে অভিযুক্ত দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে। এর কিছুক্ষণ পর আরেকটি কেন্দ্র স্থগিত ঘোষণা করা হয়। পরবর্তীতে আরও বেশ কয়েকটি কেন্দ্রে রাতে ভোটের প্রমাণ পাওয়া যাওয়ায় সকাল পৌনে ১০টার দিকে উপজেলার ৮৯টি কেন্দ্রের সবকটিতেই ভোটগ্রহণ স্থগিত ঘোষণা করেন রিটার্নিং অফিসার ও জেলা নির্বাচন অফিসার মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *