৩৩ শতাংশ সাংসদের বিরুদ্ধে রয়েছে ফৌজদারি

ভারতে বর্তমান লোকসভার ৫২১ জন সাংসদের মধ্যে ৮৩ শতাংশই কোটিপতি। ৩৩ শতাংশ সাংসদের বিরুদ্ধে একাধিক ফৌজদারি (অপরাধমূলক) মামলা রয়েছে। নির্বাচনী সংস্কার নিয়ে কাজ করা এনজিও সংস্থা অ্যাসোসিয়েশন ডেমোক্রেটিক রিফর্মস (এডিআর)-এর একটি প্রতিবেদনে এই তথ্য উঠে এসেছে। ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে জয়ী ৫৪৩ জন সাংসদের মধ্যে ৫২১ জন সাংসদের হলফনামা যাচাই করে এই বিষয়ে রিপোর্ট তৈরি করেছে এডিআর।

বৃহস্পতিবার প্রকাশ্যে আসা এই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ৫২১ জন বর্তমান সংসদ সদস্যের মধ্যে ৪৩০ জন সাংসদ কোটিপতি-এর মধ্যে ২২৭ বিজেপির, ৩৭ জন কংগ্রেসের, ২৯ জন এআইএডিএমকে, বাকিরা অন্য দলের সাংসদ।
প্রতিবেদন অনুযায়ী, একেকজন সাংসদের গড় সম্পদের পরিমাণ ১৪.৭২ কোটি রুপি। যেখানে ৩২ জন সাংসদ জানিয়েছেন তাদের নিজেদের সম্পদের পরিমান ৫০ কোটি রুপিরও বেশি। মাত্র দুইজন সাংসদ ঘোষণা দিয়েছেন যে তাদের সম্পদের পরিমাণ ৫ লাখেরও কম।

ভারতের সবচেয়ে বিত্তবানী সাংসদ হলেন তেলেগু দেশম পার্টি (টিডিপি)-এর জয়দেব গাল্লা। তার মোট সম্পদের পরিমাণ ৬৮৩ কোটি রুপি। সবচেয়ে কম সম্পদের অধিকারী রাজস্থানের বিজেপি সাংসদ সুমেধা নন্দ স্বরস্বতী-মাত্র ৩৪ হাজার রুপি।

মোট সাংসদের ১৭৪ জনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ফৌজদারি মামলা রয়েছে। আর ফৌজদারি মামলায় অভিযুক্ত ১০৬ জন সাংসদের বিরুদ্ধে খুনের প্রচেষ্টা, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করা, অপহরণ, নারী নির্যাতনসহ গুরুতর অপরাধমূলক অভিযোগ আছে। ১০ সাংসদের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ রয়েছে-এর মধ্যে বিজেপির সাংসদ রয়েছে ৪ জন এবং জাতীয় কংগ্রেস, এনসিপি, এলজেপি, আরজেডি, স্বাভিমানি পক্ষ ও স্বতন্ত্র দলের ১ জন করে সাংসদ রয়েছেন।

১৪ জন সাংসদের বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করার অভিযোগ রয়েছে-এর মধ্যে ১০ জন বিজেপি সাংসদ, ১ জন করে সাংসদ রয়েছে টিআরএস, পিএমকে, এআইএমইআইএম এবং এআইইউডিএফ দলের।

ভারতের ৫২১ জন সাংসদের মধ্যে ৩৮৪ জনের শিক্ষাগত যোগ্যতা স্নাতক বা তার বেশি। ১২৬ জনের শিক্ষাগত যোগ্যতা দ্বাদশ শ্রেণী উত্তীর্ণ বা তার নিচে। মাত্র একজন সাংসদ আছেন যিনি অশিক্ষিত বলে হলফনামায় জানিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *