শুকতারা যুবকে হারিয়ে মহসিন ক্লাব ফাইনালে

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ খেলাতো নয়। আগুন নিয়ে লড়াই। কি হয়নি এ ম্যাচে। চেচামেচি,খিস্তিখেউর,হাতাহাতি,ধাক্কাধাক্কি,হলুদ কার্ড,লাল কার্ড। গোল করে সমতা। টাইব্রেকার। গ্যালারী উপচে পড়া দর্শক। এতকিছু উপকরণ মিলে মর্যাদার এ লড়াইয়ে হেসেছে মহসিন ক্লাব। হেরে সেমিফাইনাল থেকে বিদায় নিয়েছে স্টেডিয়াম পাড়ার দল শুকতারা যুব সংসদ। গতকাল ওসমানী পৌর স্টেডিয়ামে নাসিম ওসমান স্মৃতি ১ম বিভাগ ফুটবল লীগ এর ২য় সেমিফাইনালের চিত্র এটি। পুরো ম্যাচে ভাল খেলেছে তারা। বল দখলের মুন্সিয়ানায় নিজেদের আধিপত্য ধরে রাখলেও মেজাজ হারিয়ে তা নষ্ট করেছে শুকতারার ছেলেরা। খেলার শুরু থেকেই ছিল উত্তেজনা। এর রেশ ছিল খেলার শেষ পর্যন্ত। আক্রমণ পাল্টা আক্রমণে খেলাটি ছিল উত্তেজনায় ভরা। প্রথমার্ধে অন্তত ৩টি গোল খাওয়া থেকে দলকে বাঁচিয়েছে মহসিন ক্লাবের কিপার শাওন। ম্যাচে যদি কাউকে সেরার পুরস্কার দিতে হয় তবে এককভাবে প্রাপ্য শাওন। প্রথমার্ধের খেলা গোলশূণ্য শেষে ৫৭ মিনিটে একটি নিরীহ গোছের আক্রমণ থেকে গোল করেন মহসিন ক্লাবের জিকন ১-০। ম্যাচে ফেরার সুযোগ পেয়েছে শুকতারা। কিন্তু মহসিনের গোল এরিয়ায় এসে তালগোল পাকিয়ে ফেলে তারা। তবে মহসিনের স্টপার কাওসার হামিদের প্রসংশা করতেই হয়। অসামান্য দৃঢ়তা দেখিয়ে দলকে বিপদমুক্ত করেছে বেশ কয়েকবার। পরাজয়ের রেখা ফুটার ক্ষণ আগে ৮৮ মিনিটে গোল করে সমতা নিয়ে আসে শুকতারা যুব সংসদের আরিফ দেওয়ান ১-১। ইনজুরি টাইমে খেলা গড়ায়। এ সময় মাঠে দু’দলের খেলোয়াড়দের মধ্যে হাতাহাতি,ধাক্কাধাক্কির রেশ পুরো মাঠে ছড়িয়ে পড়ে। রেফারী জালাল শক্ত হাতে ম্যাচটির নিয়ন্ত্রণে রাখেন। ২টি করে হলুদ কার্ড দেখায় শুকতারা যুব সংসদের আরিফ এবং মহসিন ক্লাবের মিঠুনকে লাল কার্ড দেখিয়ে মাঠ থেকে বের করে দেন। খেলা গড়ায় টাইব্রেকারে। প্রথম ৫ শর্টে দু’দলের সবাই গোল করেন। সাডেন ডেথে গড়ায় খেলা। প্রথম শর্টটি নেন শুকতারা যুব সংসদের মাসুম মিয়া। তার শর্ট ঠেকিয়ে দেন মহসিনের কিপার শাওন। মহসিন ক্লাবের রাহাত শর্ট নিতে আসেন। গ্যালারীতে সে কি শোরগোল। গোল করেন রাহাত। আনন্দে নাচতে থাকে মহসিন ক্লাবের সবাই। ফলাফল মহসিন ক্লাব-১(৬) শুকতারা যুব সংসদ-১(৫)।
মহসিন ক্লাব ঃ শাওন,কাউসার হামিদ,রাহাত,প্রান্ত,নয়ন,পারভেজ,জিকন,রাজন,নয়ন মিয়া(মুরাদ),মিঠুন,তপু(বিপ্লব)।
শুকতারা যুব সংসদ ঃ উজ্জল,শিমুল,মেহেদী,ঝিন্টু,সাইফুল(রাকিব),ডালিম,রফিকুল,আরিফ,হুমায়ুন(মাসুম),মিঠু,দিদারুল।
রেফারী- জালাল উদ্দিন,হারুন উর রশিদ,ফেরদৌস ও আইয়ুব।
ফাইনাল খেলা (৭ ডিসেম্বর) ঃ মহসিন ক্লাব ও সিরাজউদ্দৌলা ক্লাব (বেলা-২:০০টা)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *